তবে লোকে কি মনে করবে?

image

“তাহলে লোকে কি বলবে?”, বঙ্গ সমাজের প্রতিটি মানুষ হয়তো তাদের জীবনকালে একবার না একবার এই প্রশ্নটির সামনে পড়েছে।
মাঝে মাঝে আমার জানতে ইচ্ছে করে, আসলে লোকে ভাবে কি? আর এই লোকেরা যে ঠিক ভাবছে না ভুল ভাবছে তার বিচার করে কে?
প্রথমতঃ মানুষ সামাজিক জীব, অতএব সমাজের সাথে সংযোগ বজায় রাখাটা বোধয় একপ্রকার জরুরি হয়ে পরে, নয়তো সেই মধ্য-যুগ এর মতো ‘এক ঘড়ে’ হয়ে পড়ার সম্ভবনা থাকে, ( তবে এই ‘এক ঘড়ে’ করার প্রচলন যে এখনো বাংলা তথা ভারতের অনেক স্থানেই প্রচলিত)।
অনেকে হয়তো ব্যাখ্যা দেবেন এটা অতি আবশ্যক, সমাজ তথা জাতির কিছু মূল নিয়ম-কানুন রক্ষা করার স্বার্থে। স্বাভাবিক ভাবেই কোনো নর-মাংসভজী মানুষ যেমন সমাজে থাকার অধিকার হারায়, যেমন কোনো প্রবঞ্চক কে সমাজ মেনে নিতে পারে না ঠিক তেমন ভাবেই ধর্ষণের শিকার হওয়া একটি মহিলা এই সমাজের চোখের বিষ হয়ে ওঠে।
আমার অতি ক্ষীণ বিচার বুদ্ধি দ্বারা আমি এটা আজও বুঝতে পারিনি যে এতে ওই মহিলাটির অপরাধটি কোথায়? বস্তুত অপরাধ তো তার ওপর হয়েছে।
প্রায় প্রতিদিন এ চোখে পরে সংবাদমাধ্যমের মধ্য দিয়ে যে, আমাদের দেশে ছাত্র আত্মহত্যা ক্রমশ বাড়ছে। চোখ-কান খোলা রাখলে, প্রায় দেখা যায়, কত ছেলে-মেয়ে তাদের নিজের স্বপ্নগুলো কে ভুলে যেতে বাধ্য হচ্ছে কারণ একটাই, যে তাদের অভিভাবক হাজার ভাবে ছেলেমেয়েদের যখন বোঝাতে ব্যর্থ হচ্ছেন ঠিক তখন এই ছোট্ট প্রশ্ন, ‘তাহলে লোকে কি ভাববে?’ তাদের তুরুপের তাসের কাজ করছে।
আর সত্যি তো, লোকে কি ভাববে… এই প্রশ্নের উত্তর হয়তো কারুর কাছে নেই।
বাঙালি সমাজে আরেকটি প্রচলিত ধারণা রয়েছে, যে পেশাগত ভাবে ছেলে-মেয়েরা নাকি ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার না হতে পারলে তাদের ভবিস্যত অন্ধকার। বাঙালিরা এই ‘stereotype’ করতে খুবই পটু। যেমন মাড়োয়ারি ছেলেরা নাকি ব্যবসায়ী হতে বাধ্য, সেরকমই বঙ্গসন্তান রা ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার অথবা সরকারি চাকুরে হতে বাধ্য।
এই লোকে কি ভাবলো না ভাবলো এই নিয়ে চিন্তা, বোধয় এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্মকে ‘অলিম্পিক রিলে রেস’ এর মতো হস্তান্তর করা হয়। এই প্রশ্নের উত্তর না থাকায় হয়তো আমাদের পুরবশুরীরাও নিজেদের  অনেক আশা আকাঙ্খা বিসর্জন দিয়েছেন, এবং আমাদের মতো আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম সেটাই পুনরাবৃত্তি করবে।

কখনও নিজে নিজে বসে ভাবি, যে হয়তো প্রতি ব্যাপারে একটা জন-সম্মতির আকাঙ্খা হয়তো আমাদের সমাজের প্রগতির গতি হ্রাস করছে।
একবার ও ভেবে দেখেছেন, যদি আজ সেইসব প্রাতঃস্মরণীয় মানুষরা হাল ছেড়ে দিত, শুধু মাত্র লোকে কি ভাবলো না ভাবলো তার ভয়ে, আমরা হয়তো এখনো সেই প্রাচীন যুগে বাস করতাম।
সেইসব মহান আবিষ্কার যদি এই মানুষের সম্মতির জন্য অপেক্ষা করতো, তাহলে কি হতো?
হয়তো সিদ্ধান্তঃটি আমাদের হাতেই, যে আমরা লোকে কি ভাবলো সেটা নিয়ে বসে থাকব, নাকি নিজের প্রতিভা অনুযায়ী সবরকম বাধা বিপত্তি কে দূরে ঠেলে এগিয়ে যাবো।

শেষ করার আগে বলা বাহুল্য, ‘লোকে কি ভাববে সেটা আমরা ভাবলে, তাহলে লোকে কি ভাববে!’
জীবনটা যখন আমার তখন শুধু আমার ভাবনা আর আমার অভিভাবকদের সমর্থনটাই, পর্যাপ্ত নয় কি??

image

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s